Professor Mohammad Tamim has recently joined BRAC University as its new pro vice-chancellor. He has more than 30 years of experience of university teaching, research and administration as well as both the government and private sectors. He has also led many joint projects of overseas universities and multilateral aid agencies.

Professor Tamim's spectacular career includes significant contributions in the field of energy policy and planning. He had served as a consultant for different projects of international agencies such as World Bank, JICA and USAID. He was also special assistant to the chief adviser of the caretaker government of Bangladesh in 2007-2008 with responsibility for the ministry of power, energy and mineral resources. He has significantly contributed in policy formulation and planning and implementation of the electricity and fuel sector.

Before joining BRAC University, he was a professor at the department of petroleum and mineral resources engineering department in Bangladesh University of Engineering and Technology (BUET).

Professor Tamim received his PhD in petroleum engineering from the University of Alberta, Edmonton, Canada. He had obtained his master's degree in mechanical engineering from the Indian Institute of Technology (IIT), Madras, India, and did his bachelor's degree in the same subject from BUET.

On Tuesday 12th February 2019, a service delivery partnership agreement was signed between BRAC Probashbandhu Limited and Flight Expert. It represents an unprecedented Air Ticketing and related service delivery agreement for the migrant workers of Bangladesh and customers of BRAC Probashbandhu Limited.

BRAC Probashbandhu Limited, a social enterprise of BRAC established to ensure safe, skilled, low cost and middleman free migration from Bangladesh. It has been striving to ensure responsible recruitment of Bangladeshi workers. It started a pilot with 11 offices in 3 districts and have served 7,000 migrant customers, providing low cost migration services ranging from language training (including mobile app) to technical skills training in collaboration with 30 training centers of BRAC institute of Skills development (BiSD) and other social enterprises of BRAC.

Flight expert, the first ever online travel agency (OTA) of Bangladesh provides ticketing and travel solutions to thousands of customers since its inception in 2016 aiming to give people the ease of booking local & international flights or reserve hotels from online, all at once. Flight Expert have listings of more than 250,000 hotels and over 650 airlines. By ensuring the quality services, continuous innovation & progression, flight expert successfully reached out to people over internet & smartphones. Now it is regarded as one of the best OTAs in Bangladesh.

'This partnership will involve Flight Expert’s consortium of Airlines and Hotel chains to ensure online ticketing and travel support to BRAC customers at their doorsteps. It is opening a new horizon to connect rural to urban digitally. This partnership is bringing the dream to reality of present government. At successful implementation of this agreement may result into farther extension and broadening to all other enterprises and entities of BRAC. Both the organizations will play a continued role in service to reach out all over the country.

Mr. Asif Saleh Senior Director, BRAC and BRAC International & managing director BPL signed and quoted, “We are planning and working to ensure safe, orderly and regular migration from Bangladesh at affordable cost.” This stride of BRAC proves to provide more supports to its target groups digitally at possible all corners of Bangladesh and gradually in other countries of BRAC services.

Mr M.A. Rashid Shah Shamrat, president of Flight Expert signed and quoted, “We are always positive towards new challenges and happy to solve the problems. Hope this partnership will come as a good help to the people throughout Bangladesh and abroad”.

The signing ceremony was witnessed by officials of BRAC and Flight Expert.

Professor Vincent Chang has joined BRAC University as the vice chancellor on February 11, 2019.

Professor Vincent Chang has more than thirty years of experience in university teaching, research and administration in different capacities. He has recognised success in higher education, finance, economics, and engineering in diverse environments, including academia, Fortune 500’s, startups, Wall Street, and Silicon Valley and has significant international experience in the US, Europe, the Greater China, East Asia, and the Middle East.

Before BRAC University, Professor Chang was the inaugural chair for Institutional Development and a professor at the Practices of Management Economics in The Chinese University of Hong Kong, Shenzhen, China.

He has been the founding president and planning director in the University of Business Technology (by Virginia Tech), Muscat, Oman. He has also served in different positions in Massachusetts Institute of Technology (MIT) and Federal Reserve Board, Washington, DC. He has further contributed at leading positions in ECapital Financial, Santa Monica, California; General Bank in L.A, California; J.P. Morgan, New York, London and Singapore; and McKinsey & Co., Hong Kong and Greater China.

Professor Chang has obtained his first PhD in electrical engineering and computer science from University of California at Berkeley and second PhD in economics from Massachusetts Institute of Technology (MIT), Cambridge, Massachusetts. He has obtained his master's degree in public administration from Harvard University Kennedy School of Government, Cambridge, Massachusetts, and MBA from Yale University School of Management, New Haven, Connecticut. His master's degree and bachelor's degree in electrical engineering are from National Taiwan University, Taipei, Taiwan.

Tuesday, 12 February 2019 00:00

Sir Fazle at the 60th anniversary of Kumon

BRAC founder and chairperson Sir Fazle Hasan Abed said BRAC will expand the Kumon method in Bangladesh, for children to be able to excel in mathematics. He was speaking as the chief guest at the 60th founding anniversary of Kumon, a specialised institution for teaching maths and language, in Tokyo.

Kumon Institute of Education organised the event at the Pacifico Yokohama Exhibition Hall in Tokyo on Monday (11 February 2019), attended by Kumon instructors and alumni from around the world. Organisers said the programme was themed upon global broadening, evolving and deepening of learning, and circulation of knowledge.

In 1958, Japanese teacher Toru Kumon invented a method for his son to learn maths and language in a fun way, which, after replicating across Japan, spread across the world. Today, Kumon learning centres are active in as many as 50 countries including Bangladesh, creating better learning opportunity for millions of children.

Having congratulated Kumon and its staff on the occasion, Sir Fazle said, “What started as a father’s initiative to help his son learn maths, has now become a worldwide movement to strengthen skills in maths and reading among millions of children in Japan and other countries around the world, using a structured and individualised approach.

"In 2013, Lady Abed and I met the president of Kumon and his team in Tokyo. At that meeting, he expressed an interest in working with BRAC to test out the Kumon method in a handful of BRAC schools in Bangladesh. This plan went ahead with financial support from JICA. Kumon concluded from this pilot project that their method could help to improve learning outcomes in maths for the poorest children," he further said, informing the audience that BRAC is now running two Kumon learning centres in Dhaka, while planning to set up hundreds of learning centres for maths and reading all over the country in the next few years.

President of Kumon Institute of Education Hidenori Ikegami, in his chair's speech, focused on the future scaling up plans of the institution, and the innovative ways the Kumon teachers and staff are following to overcome the challenges in spreading the method across the world.

play-lab-news-frontplay-lab-news-banner

In August 2017, almost a million Rohingya fled to Bangladesh from violence and persecution in Myanmar. Among them, 55% were children, many of whom were torn from their families, and have seen more violence than most adults would in a lifetime. Research shows that play has the power to heal trauma. So, BRAC has developed a play-based solution called the Humanitarian Play Lab (HPL) model to help refugee children learn and recover from trauma.

On Tuesday (February 5, 2019), the BRAC Institute of Educational Development officially launched the HPL at the Play Summit 2019 held at BRAC CDM in Savar near Dhaka. With the slogan “Play to Heal, Play to Learn,” participants discussed the role of play in the early years of a child’s life, and how this model could be replicated in low resource and humanitarian settings. Mohiuddin Ahamed Talukder, deputy director of the Directorate of Primary Education, and Lesley Patricia Holst, initiatives lead of LEGO Foundation, were present among others.

play-lab-news-inner

“The Humanitarian Play Lab model is a repurposing of the Science of Play for settings troubled by humanitarian crisis. Learning through play portrays children as being empowered and upholds their dignity. It provides them with comfort, happiness and pride as they play with toys, engage in physical play, recite and chant,” said Dr. Erum Mariam, Executive Director of BRAC IED.

HPL caters to children aged 0-6. The spaces have been designed around the memories of home of the Rohingya children. The BRAC IED team, women, adolescents and children have worked together to design the spaces with motifs and paintings significant to Rohingya culture. More than 40,000 Rohingya children have played and learned at the 250 BRAC play labs since 2017.

BRAC has been promoting play as a learning tool since 2015 by developing and implementing the renowned Play Model in active collaboration with the LEGO Foundation. The model incorporates play-based learning in its curriculum and is implemented over 300 play spaces across Dhaka. BRAC’s HPL model is an adaptation of the Play Model developed by LEGO Foundation.

Sunday, 27 January 2019 00:00

Leadership

Written by

Leadership




safa-award-frontsafa-award-banner

BRAC, the number one NGO in the world, has won the prestigious South Asian Federation of Accountants (SAFA) award 2017 for best presented annual report in the non-governmental organisation category. The award was handed over to BRAC at a ceremony in Pune, India on Tuesday (January 22, 2018). Tushar Bhowmik, director of BRAC’s finance department, received the award.

SAFA is a federation of organisations of accountants from all the eight SAARC (South Asian Association for Regional Cooperation) countries.

“BRAC regularly follows standard requirements in carrying out audit of its financial matters. Our objective is to ensure organisational accountability through full disclosure. We have strong corporate governance, which plays a key role in preparing a highly standard financial statement,” said Tushar Bhowmik, BRAC’s finance director, after receiving the award.

The selection for this award was made on the basis of an assessment of transparency, accountability and good governance. Last year, the Institute of Chartered Accountants of Bangladesh (ICAB) awarded BRAC for its annual report. ICAB then sent the report to SAFA to compete with the annual reports of NGOs and NOPs from other SAARC countries. BRAC was nominated for the award following an assessment of all the entries in this category.

prottasha

blue-bar

 

আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার সর্বশেষ পরিসংখ্যান অনুযায়ী ২৫৭ মিলিয়ন জনগোষ্ঠী (বিশ্ব জনসংখ্যার ৩.৪%) কাজের জন্য বা  অন্য কোনো প্রয়োজনে নিজ দেশে বাস না করে অন্য দেশে বাস করছেন এবং উভয় দেশেরই আর্থ-সামাজিক এবং সাংস্কৃতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছেন। বিশ্বব্যাংকের হিসাব অনুযায়ী ২০১৭ সালে ৬১৩ বিলিয়ন ইউএস ডলার প্রবাসী আয় হিসেবে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের জাতীয় আয়ে যুক্ত হয়েছে। বিশ্বের যে কোনো দেশের মতোই বাংলাদেশের উন্নয়ন এবং সমৃদ্ধির ক্ষেত্রে অভিবাসন খাতটি  অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ২০১৮ সালে বাংলাদেশ শুধু এই খাত থেকে প্রায় ১৫ বিলিয়ন ইউএস ডলার আয় করেছে।  

২০১৮ সালে বাংলাদেশে থেকে মোট ৭ লাখ ৩৪ হাজার কর্মী বিদেশ গিয়েছেন। এদের মধ্যে নারী কর্মীর সংখ্যা ১ লাখ ১ হাজার ৬০৯ জন। বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করার পেছনে অভিবাসন খাত অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। কিন্তু প্রয়োজনীয় তথ্যের অভাবে অভিবাসনপ্রত্যাশীরা প্রতিনিয়ত প্রতারণার সম্মুখীন হচ্ছেন। ব্র্যাক বিশ্বের সর্ববৃহৎ বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা। ২০০৬ সাল থেকে বাংলাদেশের অভিবাসনপ্রবণ জেলাসমূহে নিরাপদ অভিবাসন নিশ্চিত, মানবপাচার প্রতিরোধ ও সচেতনতা সৃষ্টি এবং বিদেশফেরত অভিবাসীদের পুনরেকত্রীকরণের লক্ষ্যে ব্র্যাকের মাইগ্রেশন প্রোগ্রাম কাজ করে যাচ্ছে। প্রতিবছর প্রবাস থেকে অনেক মানুষ দেশে ফেরত আসে। কিন্তু তাদের বিষয়টি একেবারে উপেক্ষিত থেকে যায়। বিষয়টির গুরুত্ব বিবেচনা করে ইউরোপীয় ইউনিয়নের অর্থায়নে ও আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার (আইওএম) সহযোগিতায় ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রাম সারাদেশে বিদেশফেরতদের সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে।

অভিবাসী কর্মী ও তাদের পরিবারের অধিকার রক্ষায় গণমাধ্যমের ভূমিকা অনস্বীকার্য ও প্রশংসনীয়। অভিবাসনবিষয়ক সাংবাদিকতাকে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃতি দিতে ব্র্যাক ২০১৫ সাল থেকে প্রথমবারের মতো ‘অভিবাসন মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড’ দেওয়া শুরু করে। এরই ধারাবাহিকতায় বস্তুনিষ্ঠ অভিবাসন সাংবাদিকতাকে অনুপ্রাণিত করতে ‘অভিবাসন মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড’ ২০১৮ ঘোষণা করা হবে। এটি হবে চতুর্থ অভিবাসন মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড।

যেসব বিভাগে/ক্যাটাগরি ‘অভিবাসন মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড’-২০১৮ প্রদান করা হবে
(ক)    সংবাদপত্র (জাতীয়): অভিবাসন বিষয়ে দেশে ও বিদেশে যে কোনো জাতীয়  সংবাদপত্রে প্রকাশিত প্রতিবেদন।
(খ)    সংবাদপত্র (আঞ্চলিক): অভিবাসন বিষয়ে বাংলাদেশের যে কোনো আঞ্চলিকসংবাদপত্রে প্রকাশিত প্রতিবেদন।
(গ)    টেলিভিশন: অভিবাসন বিষয়ে দেশে ও বিদেশে যে কোনো বেতারে সম্প্রচারিত অনুষ্ঠান/প্রতিবেদন।
(ঘ)    রেডিও: অভিবাসন বিষয়ে দেশে ও বিদেশে যে কোনো বেতারে সম্প্রচারিত অনুষ্ঠান/প্রতিবেদন।
(ঙ)    অনলাইন: অভিবাসন বিষয়ে দেশে ও বিদেশে যে কোনো অনলাইন পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন।
(চ)    আলোকচিত্র: অভিবাসন বিষয়ে দেশে ও বিদেশে যে কোনো গণমাধ্যমে প্রকাশিত আলোকচিত্র।
(ছ)    ব্লগ: অভিবাসন বিষয়ে দেশ ও বিদেশে যে কোনো ব্লগে প্রকাশিত ব্লগ।

প্রতিবেদন/অনুষ্ঠান/আলোকচিত্রসমূহের প্রকাশ/প্রচারের সময়সীমা
সংবাদপত্র, বেতার, টেলিভিশন, অনলাইন সংবাদমাধ্যম অথবা ব্লগে দেশে অথবা প্রবাসে কর্মরত যেকোনো বাংলাদেশি সাংবাদিক, ব্লগার অথবা গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব আবেদন করতে পারবেন। অভিবাসনবিষয়ক প্রতিবেদন/অনুষ্ঠান/আলোকচিত্রসমূহ অবশ্যই ১লা জানুয়ারি, ২০১৮  থেকে ৩১ শে ডিসেম্বর, ২০১৮ র মধ্যে প্রকাশিত/প্রচারিত হতে হবে।

যোগ্যতা ও সতর্কতা
অ্যাওয়ার্ডের জন্য জমা দেওয়া প্রতিবেদন/অনুষ্ঠান/আলোকচিত্রসমূহের স্বত্বাধিকারনিশ্চিত করতে হবে। সংবাদপত্রে প্রকাশিত প্রতিবেদন/আলোকচিত্রসমূহের অনলাইন লিংক এবং টেলিভিশনে প্রচারিত প্রতিবেদন/অনুষ্ঠানের ইউটিউব লিংক প্রতিবেদনের সঙ্গে জমা দিতে হবে। যদি অনলাইন লিংক বা ইউটিউব লিংক না থাকে সেক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট গণমাধ্যমের সম্পাদক/বার্তা সম্পাদক কর্তৃক নির্ধারিত সময়ের মধ্যে (১লা জানুয়ারি, ২০১৮- ৩১ শে ডিসেম্বর, ২০১৮) সংবাদ/অনুষ্ঠানটি প্রচারিত হয়েছে মর্মে (প্রকাশ/প্রচারের তারিখ উল্লেখসহ) সত্যায়নপত্র সংযুক্ত করতে হবে।

  • অসম্পূর্ণ/ভুল তথ্যসংবলিত আবেদন বাতিল বলে গণ্য হবে।


আবেদন করার নিয়ম
১.    শুধুমাত্র বাংলাদেশি সাংবাদিক, গণমাধ্যমে ব্যক্তিত্ব এবং ব্লগাররা এই অ্যাওয়ার্ডের জন্য আবেদন করতে পারবেন।
২.    আবেদনকারীকে অবশ্যই তাঁর জীবনবৃত্তান্ত যথাযথ ফরমেটের মাধ্যমে (ফরমেটটি সর্বশেষ পাতায় সংযুক্ত) পাঠাতে হবে। প্রয়োজনীয় নথি হিসেবে প্রতিবেদন, আলোকচিত্র যে মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে তার বিবরণ জমা দিতে হবে।
৩.    আবেদনকারী তাঁর কর্মজীবন সম্পর্কে অর্ধেক পাতার মধ্যে সংক্ষিপ্ত বিবরণ (বাংলা ও ইংরেজি ভাষায়) সংযুক্ত করে পাঠাবেন। সংযুক্ত ফরমেটটি পূরণ করে আবেদনপত্রের সঙ্গে পাঠাতে হবে।

মূল্যায়ন মানদন্ড
অভিবাসন খাত, অভিবাসী ও শরণার্থী কিংবা তাদের পরিবারের অধিকার রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে এমন প্রতিবেদন (প্রকাশিত বা সম্প্রচারিত)।

‘অভিবাসন মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড’২০১৮-তে যেসব বিভাগ/ক্যাটাগরি বিবেচনায় আনা হবে
১.    প্রিন্ট মিডিয়ার প্রতিবেদনের ক্ষেত্রে (জাতীয় ও স্থানীয় উভয় ক্ষেত্রে) সংবাদপত্রে প্রকাশিত মূল কপিটি প্রেরণ করতে হবে। সংবাদপত্রের এবং প্রতিবেদকের নাম ও তারিখ অবশ্যই দৃশ্যমান হতে হবে। সংযুক্তি হিসেবে হার্ডকপি ছাড়াও সিডির মাধ্যমে সফটকপি জমা দিতে হবে।
২.    বেতারের ক্ষেত্রে এএম এবং এফএম বেতারতরঙ্গে সম্প্রচারিত অনুষ্ঠান অথবা প্রতিবেদন হতে হবে। এর সঙ্গে সংক্ষিপ্ত/সম্পূর্ণ স্ক্রিপ্ট যদি বর্তমান থাকে তবে জমা দিতে হবে। নিয়মিত বেতারে সম্প্রচারিত অনুষ্ঠানের অন্তত পরপর তিনটি অনুষ্ঠানের কপি জমা দিতে হবে।
৩.    টেলিভিশনের ক্ষেত্রে অবশ্যই সংক্ষিপ্ত এবং সম্পূর্ণ স্ক্রিপ্ট (যদি বর্তমান থাকে) সহকারে ডিভিডি-র মাধ্যমে জমা দিতে হবে।
৪.    অনলাইন মিডিয়ার ক্ষেত্রে শুধুমাত্র প্রতিবেদনটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হতে হবে এবং অনলাইনে যেভাবে প্রচারিত হয়েছে সেভাবে সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদনটি স্ক্রিনশটসহ জমা দিতে হবে। এ ছাড়াও ইউআরএলসহ সফটকপি সিডিতে জমা দিতে হবে।
৫.    আলোকচিত্রের ক্ষেত্রে আলোকচিত্রটি যেকোন মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে তার কপি ও লিংক সংযুক্ত করতে হবে। গণমাধ্যমে যেভাবে প্রকাশিত হয়েছে ঠিক সেভাবেই সংশ্লিষ্ট আলোকচিত্রসহ প্রকাশিত প্রতিবেদনটি জমা দিতে হবে। হার্ডকপি ছাড়াও সফট কপি সংযুক্তি হিসেবে সিডি-র মাধ্যমে জমা দিতে হবে।
৬.   ব্লগে প্রকাশিত অভিবাসন বিষয়ক লেখার একটি হার্ডকপিসহ সফট কপির লিঙ্ক সিডির মাধ্যমে জমা দিতে হবে।
৭.   একজন আবেদনকারী একাধিক বিভাগে আবেদন করতে পারবেন তবে একটি বিভাগের জন্য একটি প্রতিবেদনের বেশি জমা দেয়া যাবে না।

আবেদনপত্র জমাদানের ঠিকানা:
‘অভিবাসন মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড’ ২০১৮-র কমিটির নিকট আবেদন সরাসরি/ডাকযোগে জমা দিতে হবে।

যোগাযোগের ঠিকানা:
‘অভিবাসন মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড’ ২০১৮
মাইগ্রেশন প্রোগ্রাম, ব্র্যাক
ব্র্যাক সেন্টার, ৭৫ মহাখালী (১২ তলা)
ঢাকা-১২১২
বাংলাদেশ

আবেদনের শেষ তারিখ
‘অভিবাসন মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড’ কমিটির নিকট ২০১৯ সালের ২০শে ফেব্রুয়ারি বিকেল ৫টার মধ্যে আবেদন উক্ত ঠিকানায়  পৌঁছাতে হবে। নির্ধারিত সময়সীমার পরে কোনো আবেদন গ্রহণযোগ্য হবে না।

বিচারকমণ্ডলী
 যেসব সংস্থার সম্মানিত বিচারকমন্ডলীর দ্বারা আবেদনকৃত প্রবন্ধ/অনুসন্ধানী প্রতিবেদন মূল্যায়ন করা হবে:
১.    প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের একজন প্রতিনিধি।
২.    গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের একজন শিক্ষক।
৩.    নাগরিক সমাজের একজন প্রতিনিধি।
৪.    গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব।

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান
‘অভিবাসন মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড’-২০১৮ অনুষ্ঠিত হওয়ার তারিখ সংশ্লিষ্টদের যথাসময়ে জানানো হবে।

 
ফরম Download করুন

 

 

powered-by

most-outstanding-NGO-award-frontmost-outstanding-NGO-award

BRAC Sierra Leone has been awarded “The Most Outstanding NGO of the year - 2018,” by a consortium of national and international organisations (Council of Chief Executives in Sierra Leone, EcoMedia Corporation, Africa Media Corporation, Institute for Public Affairs and Good Governance, and the African Consulting group).

Since its inception in 2008, BRAC Sierra Leone has proved to be one of the leading international development organisations operating in Sierra Leone. The award comes in recognition of of the organisation’s demonstrated support and commitment through professional services, best practices, dynamic programmatic interventions, innovation, effectiveness, and sound principles.

Rakibul Bari Khan, Country Representative of BRAC Sierra Leone, described the award as a great honour and recognition of BRAC’s support towards the development of Sierra Leone. “The recognition is a reminder of what we are, and as an organisation, I must say, this is very overwhelming, timely, and useful. We intend to use this award to reaffirm our commitments to the government and the people of Sierra Leone,” he said.

Peter Sasellu, Chairman of the Council of Executives, described BRAC as an organisation that has presence and significant impact in most, if not all the districts in Sierra Leone. “I came to know about BRAC when I was in Liberia. BRAC has impacted the lives of millions of people in the African and Asian continent. It is one of the NGOs that I’m really proud of; their impact in the lives of our community’s people is very outstanding,” he added.

most-outstanding-NGO-award-innerBRAC Sierra Leone staff members at the prestigious award ceremony

Wednesday, 12 December 2018 00:00

Ahmed Mushtaque Raza Chowdhury, PhD

Written by

Ahmed Mushtaque Raza Chowdhury


Vice-Chairperson, BRAC

Dr Mushtaque Chowdhury is the vice-chairperson and advisor to the chairperson and founder of BRAC. Previously, he was its executive director, founding director of the Research and Evaluation Division and founding dean of the James P. Grant School of Public Health, BRAC University. He is also a professor of population and family health at Columbia University’s Mailman School of Public Health in New York. During 2009-2012, he served as a senior advisor to the Rockefeller Foundation, based in Bangkok, Thailand. He also worked as a MacArthur/Bell Fellow at Harvard University.

Dr Chowdhury is the first Bangladeshi to hold a professorial position in an Ivy League university in the East Coast of USA. He is one of the founding members of the Bangladesh Education Watch and Bangladesh Health Watch. He is on the board and committees of several organisations and initiatives, including the Advisory Board of the South Asia Centre at London School of Economics, Lead Group for Scaling Up Nutrition Movement at the UN, Leaders’ group of Sanitation for All at UNICEF Headquarters, Founding member of the Board of Trustees of the Humanitarian Leadership Academy in London and is the current chair of the AsiaPacific Action Alliance on Human Resources for Health (AAAH). Dr Chowdhury was a coordinator of the UN Millennium Task Force on Child Health and Maternal Health, set up by former Secretary General Kofi Annan. Dr Chowdhury is also a member of the Technical Advisory Committee of Compact2025 at International Food Policy Research Institute (IFPRI), Washington DC, Expert Group on scaling up in Education at the Results for Development (R4D), Washington DC, Leaders Group of Sanitation and Water for ALL (SWA) at Unicef Headquarters, Member of Bangladesh Medical Research Council, core member of the Citizens’ Platform for Implementation of SDGs in Bangladesh, and President of Dhaka University Statistics Department Alumni Association.

Dr Chowdhury has received a number awards, including Humanitarian Award from the Distressed Children International at Yale University in 2013, Most Impactful Book Award from the University Press Limited in 2018, and Senior Fellowship from the Bangladesh Institute of Development Studies in 2018. He is also a recipient of the ‘Innovator of the Year 2006’ award from the Marriott Business School of Brigham Young University in USA, the PESON oration medal from the Perinatal Society of Nepal in 2008 and Outstanding Leadership Award from Dhaka University Statistics Department Alumni Association. In 2017 he received the Medical Award of Excellence from Ronald McDonald House Charities in the United States of America.

Dr Chowdhury has published several books and over 200 articles in peer -reviewed international journals, including The Lancet, the Social Science & Medicine, Journal of International Development, The International Journal on Education, The Scientific American and the New England Journal of Medicine.

Dr Chowdhury holds a PhD from the London School of Hygiene and Tropical Medicine, an MSc from the London School of Economics and a BA from the University of Dhaka.

Articles

 

Updates

 

Contact

BRAC Centre, 75 Mohakhali, Dhaka-1212.
Tel: 880-2-9881265.
Fax: 880-2-9843542

Join the world’s biggest family

sign-up

Subscribe

STAY INFORMED. Subscribe to our newsletter.

Top